সিরিয়াল ধর্ষকের পাল্লায় পড়েছিল জয়নব












জয়নব আনসারি নামে ৬ বছরের একটি মেয়েকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে সমগ্র পাকিস্তানে। এ নিয়ে দাঙ্গা-সহিংসতায় দুজন নিহতও হয়েছে। তবে এটি মোটেও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়।

ধর্ষিত ও নিহত শিশুরা সিরিয়াল ধর্ষকের পাল্লায় পড়েছে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা। ডিএনএ পরীক্ষাতেও মিলেছে একই প্রমাণ। নিহত ৬ মেয়ে শিশুর দেহে একই ব্যক্তির ডিএনএ পাওয়া গেছে।

আরো পড়ুন : পাকিস্তানের কাসুরে বিক্ষোভ চলছে

কিন্তু পুলিশের নথিপত্র থেকেই এখন জানা যাচ্ছে, শুধু পাঞ্জাবের কসুর শহরেই ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে একই ধরণের ঘটনা ঘটেছে অন্তত ১০টি।

এ ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী প্রায় পাঁচ হাজার ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। বেশ কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। তবে তাদের কারো সঙ্গে এ ধরনের ধর্ষণ ঘটনার সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।

আরো পড়ুন : পাকিস্তানে ছয় বছরের শিশু ধর্ষণ ও খুন, সহিংস প্রতিবাদ

গত ৪ঠা জানুয়ারি কোরআন শিক্ষার ক্লাসে যাবার পথে নিখোঁজ হয় জয়নব আনসারি। কয়েকদিন পর তার মৃতদেহ পাওয়া যায় শহরের একটি আবর্জনা ফেলার জায়গায়। বলা হয়, তাকে ধর্ষণের পর গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশের ওইদিনের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে জয়নবকে শেষবার জীবিত অবস্থায় দেখা গেছে। তাতে দেখা যায় একজন অচেনা লোকের হাত ধরে জয়নব হেঁটে যাচ্ছে।

তদন্তকারীরা গত এক বছরের মধ্যে ঠিক এই রকম ১০টি ঘটনা চিহ্নিত করেছেন। এর মধ্যে ৬টি নিহত মেয়ের দেহে একই ব্যক্তির ডিএনএ পেয়েছেন তদন্তকারীরা।

স্থানীয়রা সন্দেহ করছেন, আক্রমণকারী একই ব্যক্তি এবং সে কাছাকাছি এলাকাতেই থাকে। এই নিহতরা সবাই অল্পবয়সী মেয়ে এবং তারা সবাই তাদের বাড়ির খুব কাছাকাছি এলাকা থেকে নিখোঁজ হয়।

ধর্ষণের পর হত্যা করা ছয় জনের মৃতদেহ একইভাবে আবর্জনার স্তূপ বা পরিত্যক্ত বাড়িতে ফেলে দেয়া অবস্থায় পাওয়া যায়। সব ক্ষেত্রেই তাদের পরিবারের বাস দু’মাইল এলাকার ভেতরে। আর তা থেকেই সন্দেহটি আরো জোরদার হয়েছে।
সূত্র : বিবিসি