অনার্স ২য় ও ৩য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের তারিখ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬ সালের অনার্স ২য় বর্ষ (বিশেষ) পরীক্ষার ফরম পূরণ আগামী ৭ আগস্ট থেকে এবং ২০১৬ সালের অনার্স ৩য় বর্ষ (বিশেষ) পরীক্ষার ফরম পূরণ আগামী ২ আগস্ট থেকে শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দফতর এ তথ্য জানিয়েছে।

শুধুমাত্র অনিয়মিত ও অকৃতকার্য শিক্ষার্থীরা ২০০৯-১০ হতে ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের সিলেবাসে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে। ফরম পূরণসহ অন্যান্য বিস্তারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট (www.nu.edu.bd) ও (www.nubd.info) থেকে জানা যাবে।

১৩ বছর বয়সে এইচএসসি পাশ!

‘পাঁচ বছরের সব জান্তা রাতুল’ শিরোনামে দেশের অনেক সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় বেশ আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। সেই ছোট্ট শিশু রাতুল ১৩ বছর বয়সে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে আবারও তাক লাগিয়েছে চান্দিনা উপজেলা তথা কুমিল্লাবাসীকে।
চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশে কুমিল্লা বোর্ডের ফলাফল বিপর্যয়ে পিছিয়ে নেই চান্দিনা উপজেলা সদরের প্রধান দুইটি প্রতিষ্ঠান। চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে মাত্র ২৪ শতাংশ হারে শিক্ষার্থীদের পাশ করার পরও ওই কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে একমাত্র পাশ করেন রাতুল আলম। ওই কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে নিয়মিত ১৫জন ছাত্র পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করলেও রাতুল ৪.০৮ পেয়ে পাশ করে।

রাতুল আলম চান্দিনা উপজেলা সদরের হাসপাতাল রোডের ডা. মোর্সেদ আলম ও মাতা নাছরিন আলম এর বড় ছেলে। ২০০৪ সালের ২১ জানুয়ারী জন্ম নেয় রাতুল। ২০০৯ সালে মাত্র ৫ বছর বয়সে মা-বাবা কোলে থেকেই পঞ্চম শ্রেণীর লেখাপড়া শেষ করে ওই শিশু।

যে বয়সে শিশুদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি শুরু হয় সেই বয়সে ডা. মোর্সেদ আলম ও তার স্ত্রী ছেলেকে পঞ্চম শ্রেণীতে ভর্তি করতে বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ঘুরে বেড়ান। রাতুলের কাছ থেকে শিক্ষকদের সকল প্রশ্নের উত্তর মিললেও সরকারি বিধি না থাকায় ২০১০ সালে ৬ বছর বয়সে পঞ্চম শ্রেণীতে তাকে ভর্তি করা সম্ভব হয়নি। ২০১১ সালে পাশ্ববর্তী দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর ভয়েজার ইংলিশ মিডিয়াম নামের একটি স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে ওই বছর প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় পাশ করে রাতুল।

২০১২ সালে চান্দিনার কেরনখাল উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে ওই বছর জুনিয়র সার্টিফিকেট পরীক্ষায় পাশ করে ২০১৩ সালে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয় সে।

ওই ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালে ১১ বছর বয়সে একই স্কুল থেকে ‘এ গ্রেড’ পেয়ে উত্তীর্ণ হয় শিশু রাতুল।

২০১৫-১৬ শিক্ষা বর্ষে চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজে ভর্তি হয়ে ২০১৭ সালে ওই কলেজ থেকে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে সে। পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ১৫জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করলেও একমাত্র রাতুল ছাড়া আর কেউ পাশ করেননি।

জিপিএ-৫ না পাওয়ায় হতাশ রাতুল। নির্ধারিত পয়েন্ট না থাকায় মেডিকেলে ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তার। এ নিয়ে সরকারের শিক্ষা পদ্ধতিকে দায়ী করেন তার অভিভাবক।